আগৈলঝাড়ায় নির্ধারিত বোর্ড ফি’র অতিরিক্ত টাকা নিয়ে চলছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরন - বিডি বুলেটিন আগৈলঝাড়ায় নির্ধারিত বোর্ড ফি’র অতিরিক্ত টাকা নিয়ে চলছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরন - বিডি বুলেটিন

রবিবার, ০৫ Jul ২০২০, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

আগৈলঝাড়ায় নির্ধারিত বোর্ড ফি’র অতিরিক্ত টাকা নিয়ে চলছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরন

আগৈলঝাড়ায় নির্ধারিত বোর্ড ফি’র অতিরিক্ত টাকা নিয়ে চলছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরন

Print Friendly, PDF & Email

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধিঃ
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় শিক্ষা বোর্ড নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের মাধ্যমে চলছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পুরণ। অরিরিক্ত ফি’র মাধ্যমে ফরম পুরণের অভিযোগ রয়েছে উপজেলার হাতে গোনা কয়েকটি স্কুল ব্যতীত অধিকাংশ স্কুলগুলোর বিরুদ্ধে। অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের ঘটনায় এলাকার কৃষি প্রধান দরিদ্র অভিভাবকদের মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা দিলেও স্কুল কর্তৃপক্ষ রয়েছেন নির্বিকার।
বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশ মতে, প্রবেশপত্র, প্রাকটিক্যাল, একাডেমীক ট্রান্সক্রিপ্ট, মুল সনদপত্র, স্কাউট, শিক্ষা সপ্তাহ ফি, জিপিএ উন্নয়ন পরীক্ষা ফিসহ এসএসসির ফরম পুরনের জন্য নিয়মিত বিজ্ঞান বিভাগে ১৯৬৫ টাকা, মানবিক ও বানিজ্য বিভাগে ১৮৭৫ টাকা ধার্য করা হয়েছে। এছাড়া বিজ্ঞান বিভাগে (অনিয়মিত) ২০৬৫ টাকা ও মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ১৯৭৫ টাকা ধার্য করা হয়। তবে বোর্ডের নির্দেশিত ফি নিয়ে উপজেলা সদরসহ হাতে গোনা কয়েকটি স্কুল ফরম পুরণ করলেও বেশীরভাগ স্কুল বোর্ডের সিদ্ধান্তকে উপক্ষা করে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের মাধ্যমে ফরম পুরণ করছে।
স্থানীয় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা অভিযোগে বলেন, উপজেলার ৩৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধিকাংশ স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সদস্যদের বানিজ্যিক মনোভাবের কারণে ফরম পুরণে বোর্ডের সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছেন। বাড়তি টাকা নেয়া স্কুলগুলো নোঠিশ বোর্ডে শুধুমাত্র বোর্ড ফির কথা উল্লেখ করে নোঠিশ টানালেও শিক্ষার্থীদের মৌখিকভাবে অতিরিক্ত টাকার কথা জানিয়ে দিচ্ছেন শিক্ষকেরা। কোন কোন স্কুলগুলোতে কোচিং ফিসহ ৩৫০০ থেকে ৪০০০টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। অনেক স্কুল ২হাজার টাকা পর্যন্ত কোচিং ফি আদায় করছে। তারা “কোচিং ফির” পরিবর্তে “অতিরিক্ত ক্লাশ” আখ্যা দিয়ে এই টাকা নিচ্ছেন। একাধিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তারা জানান, শুধু বোর্ড ফি নিয়েই ফরম পুরণ করছেন তারা। ফরম পুরনের সময় কোচিং ফি নিলেও অনেক স্কুলেই নিয়মিত কোচিং হয় না। কোচিং ফি নেয়ার পরেও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রবেশপত্র ফি, কেন্দ্র ফি, প্রাকটিক্যাল, কোচিং ফির নামে নেয়া হবে অতিরিক্ত টাকা। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও বারপাইকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুনীল কুমার বাড়ৈ জানান, সমিতির সভায় বোর্ড ফি নিয়ে ফরম পুরণের সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের কোচিং ফি বাবদ ১৫শত টাকা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। এছাড়া ফরম পুরনের সময় অন্য কোন টাকা আদায় করা যাবে না। যদি কোন স্কুল এই সিদ্ধান্ত অমান্য করে তাদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি। এ ঘটনায় উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের নির্ধারিত বোর্ড ফি নিয়ে ফরম পুরন করতে বলা হয়েছে। কোন স্কুলের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি।

 139 total views,  1 views today

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © bdbulletin.com 2018