উজিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে এস.এস.সি পরিক্ষার্থীর উপর হামলা - বিডি বুলেটিন উজিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে এস.এস.সি পরিক্ষার্থীর উপর হামলা - বিডি বুলেটিন

রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:০৪ অপরাহ্ন

উজিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে এস.এস.সি পরিক্ষার্থীর উপর হামলা

উজিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে এস.এস.সি পরিক্ষার্থীর উপর হামলা

Print Friendly, PDF & Email

উজিরপুর প্রতিনিধি:

বরিশালের উজিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হামলায় এস.এস.সির দুই পরীক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের মশাং গ্রামের আবু তাহের হাওলাদারের ছেলে এস.সি.সি পরীক্ষার্থী মিজান হাওলাদারকে ১৩ ফেব্রুয়ারী হাবিবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পূর্বে একই এলাকার হাবিবপুর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে তার ছেলে ইমন মৃধা(১৮) ও আলমগীর মৃধার ছেলে জাহিদ মৃধা(১৭), সিদ্দিক মৃধার ছেলে তারিক মৃধা(১৮), মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে শাহাদৎ হোসেন খান(৩৮), তোফাজ্জেল হোসেন খানের ছেলে ফেরদৗস খান(৪০), ইসমাইল শেখের ছেলে জাহিদ শেখ (৩৮) মিলে অতর্কিত হামলা চালিয়ে মিজান হাওলাদারকে গুরুতর আহত করেছে। এ ছাড়াও ১২ ফেব্রুয়ারী আলাউদ্দিন হাওলাদারের ছেলে পরীক্ষার্থী নিয়াজ হাওলাদার পরীক্ষার শেষে বাড়িতে যাওয়ার সময় মশাং বাজারে তার উপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর মশাং মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মনির খান একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। জানা যায়, ৮ ফেব্রুয়ারী প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামানের ছেলে ইমন মৃধা এবং হাবিবপুর কলেজের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিনের ছেলে রুবায়ের সাথে মশাং এলাকার কালাম হাওলাদারের ছেলে সাব্বিরের সাথে মারধরের ঘটনা সংঘটিত হয়। সে ঘটনায় সাব্বিরসহ ১০ জনকে আসামী করে উজিরপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল এবং সাব্বিরকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে। সেই ঘটনার রেশেই এ হামলার সূত্রপাত ঘটে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে মশাং মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটিরি সভাপতি মনির খান,অভিবাবক সদস্য আঃ সালাম খান, সাবেক ইউপি সদস্য আঃ হাকিম হাওলাদার,স্থানীয় রনি খান জানান পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মনির মাষ্টারেরর নের্তৃত্বে উল্লেখিত ৭/৮ জন মিলে ২ পরিক্ষার্থীর উপর হামলা চালিয়ে আহত করেছে। আমরা পরিক্ষার্থীদের নিরাপত্তাসহ সুবিচার পাওয়ার জন্য উর্দ্ধোতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলা হয়নি তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামান জানান এ ধরনের কোন ঘটনা হয়নি। কতিপয় ব্যাক্তি ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চেষ্টা করছে। কেন্দ্র সচিব প্রিয়লাল ঘোষ বলেন, তেমন বড় ধরণের মারধরের ঘটনা ঘটেনি তবে সিটে বসা নিয়ে দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে সামান্য কথা কাটাকাটি হয়। ইতিমধ্যে তা মিমাংশাও হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রনতি বিশ্বাস জানান পরিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার জন্য ইতিমধ্যে সকল ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

 242 total views,  2 views today

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © bdbulletin.com 2018