কিশোরগঞ্জে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্তের ঘটনায় ২৪৩ জন কোয়ারেন্টাইনে! - বিডি বুলেটিন কিশোরগঞ্জে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্তের ঘটনায় ২৪৩ জন কোয়ারেন্টাইনে! - বিডি বুলেটিন

মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২:১৮ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্তের ঘটনায় ২৪৩ জন কোয়ারেন্টাইনে!

কিশোরগঞ্জে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্তের ঘটনায় ২৪৩ জন কোয়ারেন্টাইনে!

Print Friendly, PDF & Email

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন চিকিৎসককে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। ওই চিকিৎসকের সংস্পর্শে যারা ছিলেন এমন চিকিৎসক, নার্স,রোগী সহ উপজেলার ২৪৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি উপজেলা হাসপাতালটি লকডাউন করা হয়। এছাড়াও বেশ কিছু বসত বাড়িতে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দিয়েছেন প্রশাসন।
গত মঙ্গলবার(৭ এপ্রিল) বিকেল ৫টা হতে উপজেলা হাসপাতালটি লকডাউনে থাকায় উপজেলাবাসীকে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সেবা নিতে ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিউনিটি ক্লিনিক গুলোতে সেবা গ্রহনের জন্য বলা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, গত ২৫ মার্চ ওই চিকিৎসক ঢাকায় যান। সেখান থেকে ফিরে ৩ এপ্রিল কর্মস্থলে যোগ দেন। তিনি জ্বর-সর্দি কাশিতে আক্রান্ত হলে গত রবিবার(৫ এপ্রিল) এ চিকিৎসকের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য তিনি সহ সাতজনের নমুনা রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় স্বাস্থ্য বিভাগ। তাদের মধ্যে শুধু এই চিকিৎসকই সংক্রমণের শিকার বলে গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৫টায় ফলাফল আসে।

নীলফামারী সিভিল সার্জন রনজিৎ কুমার বর্মন বলেন, গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্র লকডাউন করা হয়েছে। ওই চিকিৎসককে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা ভাল রয়েছে। এ ছাড়া ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সকল চিকিৎসক-কর্মচারীকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।
এদিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র মতে, গত ১ ডিসেম্বর থেকে ৮ এপ্রিল বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংখ্যা ৩৪৫ জন। বর্তমানে বিদেশ ফেরত হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ২৩ জন। এর মধ্যে মোট কোয়ারেন্টাইন সম্পূর্ণ হয়েছে ৩২২ জনের।

জেলা জলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, গতকালকে পুরো উপজেলাকে লকডাউন করা হয়েছে। পাশাপাশি ওই চিকিৎসকের কাছাকাছি ছিল এমন ব্যাক্তিদের চিহিৃত করে তাদের প্রত্যেকের বাড়িতে লাল পতাকা উড়িয়ে দেয়া হয়েছে।সাধারন মানুষজনকে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে সচেনত থাকতে বলেছেন।

উপজেলার চাঁদখানা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফিজার রহমান জানান, গতকাল মঙ্গলবার আমার ইউনিয়নের দুই ব্যক্তি বেলা ২ টার সময় কিশোরগঞ্জ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরার কয়েক ঘন্টা পর সংবাদ পাই হাসপাতালের এক চিকিৎসক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তাই হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া ওই দুইজন রোগীর বাড়ি লকডাউন ঘোষনা করে বাড়িতে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঢাকা ও নারায়ানগঞ্জ থেকে বাড়িতে আসা ৫০জন শ্রমিককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বাহাগিলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ দুলু জানান, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ডাক্তার যে ফার্মেসীতে বসে রোগী দেখতেন সেই দোকানদারের বাড়ি এবং নারায়নগঞ্জ ফেরত একজনের বাড়ি লকডাউন করে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বাইরের জেলা থেকে আসা ৪০ জনকে হোম কোয়ারেনন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিয়েছি।
গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিক জানান, চিকিৎসক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর ওই হাসপাতালে কর্মরত একজন স্বাস্থ্য সেবি এবং আমার ইউনিয়নে আরেক এক বাসিন্দার বাড়ি লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। এছাড়াও হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ১০ জন।

বড়ভিটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফজলার রহমান জানান, তাঁর ইউনিয়নে হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ৩০ জন।
রণচন্ডি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোকলেছার রহমান বিমান জানান, তাঁর ইউনিয়নে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১০ জন।
নিতাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান ফারুক জানান, ঢাকা ও নারায়নগঞ্জ থেকে আমার ইউনিয়নের ৮ জনকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলেছি।
কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম আনিছ বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ওই চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নেওয়া আমার ইউনিয়নের এক বাসিন্দার বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বাইরের জেলা থেকে আসা আমার ইউনিয়নের ৮০ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

মাগুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান শিহাব বলেন, মাগুড়া ইউনিয়নের হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১৫।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু শফি মাহমুদ জানান, হাসপাতালের এক চিকিৎসক করোনা ভাইরাসে আকান্ত হওয়ার কারনে অলরেডি হাসপাতাল লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। তাঁর মানে আমরা সবাই লকডাউনের মধ্যে আছি। হাসপাতাল লকডাউন থাকায় সাধারন রোগীর কোথায় চিকিৎসা সেবা পাবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রামের রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য সমস্ত কমিউনিটি ক্লিনিক খোলা রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

 140 total views,  2 views today

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © bdbulletin.com 2018