মালাকার বাহিনীর হামলায় একই পরিবারের চার সদস্য হাসপাতালে - বিডি বুলেটিন মালাকার বাহিনীর হামলায় একই পরিবারের চার সদস্য হাসপাতালে - বিডি বুলেটিন

বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০১:০৯ অপরাহ্ন

মালাকার বাহিনীর হামলায় একই পরিবারের চার সদস্য হাসপাতালে

মালাকার বাহিনীর হামলায় একই পরিবারের চার সদস্য হাসপাতালে

রিয়াজ মাহমুদ, পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

জমিজমা বিরোধের জেরে পটুয়াখালীতে একই পরিবারের চার সদস্যকে কুপিয়ে জখম করেছে খমতাশীন মালাকার বাহিনীর সদস্যরা। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারী) সদর উপজেলার খলিশাখালি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো, হৃদয় দাস (২৫), প্রিয়ন্তি দাস বৃষ্টি (১৭), কবিতা রানী দাস (৪৮), সজল দাস (৩৮)। জানা গেছে, দির্ঘদিন ধরে আহত হৃদয়ের উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া সম্পত্তি নিয়ে মালাকার বাহিনীর প্রধান অপূর্ব মালাকারের সাথে বিরোধ চলে আসছিলো। গত শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারী) বিরোধ পূর্ণ জায়গায় মালাকার বাহিনীর প্রধান অপূর্ব মালাকার তার সদস্যদের নিয়ে গাছ কাটে। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারী) সকালে কাটা গাছ দেখতে গেলে ও হৃদয় উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া সম্পত্তির কথা বললে তাকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুত্বর আহত করে। এসময় হৃদয়কে বাচাতে বোন বৃষ্টি ও মা কবিতা এগিয়ে আসলে মালাকারের বাহিনীর প্রধান ও তার বাহিনীর সদস্যরা তাদেরকে সিলতাহানী করে। পরে তাদেরকে সজল উদ্ধার করতে আসলে তাকেও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুত্বর আহত করে । গুরুত্বর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালেে ভর্তি করে। ১০ ফেব্রুয়ারী পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হৃদয়ের বাবা উত্তম কুমার দাস বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালেের জরুরি বিভাগের কত্যবরত চিকিৎসক জানান, আহতদের মধ্যে হৃদয়ের শারীরিক অবস্থা অবনতী হলে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। অপর তিন জন পটুয়াখালী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কবিতা রানী দাস জানান, আমরা নিরিহ বলে আজ আমার ছেলে মৃত্যু পথ যাত্রী। আমার কিশোরী মেয়ে, দেবর সজল ও আমাকেও মারধর করেছে। হৃদয়ের বাবা উত্তম কুমার দাস জানান, অপূর্ব মালাকার একজন পুলিশ সদস্য হওয়ার কারণে আমি ঘটনার দিন থানায় মামলা করতে পারিনি। সে পুলিশে চাকরির পাশাপাশি এলাকায় মালাকার বাহিনী নামে একটি বাহিনী প্রতিষ্ঠা করেছে। মালাকার বাহিনীর প্রধান হলোো অপূর্ব মালাকার। আজ মালাকার বাহিনীর অত্যাচারে আমার পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে। আমি এর বিচার চাই। এবিষয়ে জানতে পুলিশ সদস্য ও মালাকার বাহিনীর প্রধান অপূর্ব মালাকারের ব্যবহিত মুঠোফোনেে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

 1,113 total views,  4 views today

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © bdbulletin.com 2018