শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:০৪ অপরাহ্ন

অফিস শুরু হলেও স্বরূপে ফেরেনি ঢাকা

অফিস শুরু হলেও স্বরূপে ফেরেনি ঢাকা

ঈদুল আজহার ছুটি কাটাতে বিপুল সংখ্যক মানুষ রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন এলাকায় গেছেন। এতে করে অফিস শুরু হলেও ব্যস্ততম ঢাকা এখনো স্বরূপে ফেরেনি। আর দশটা দিনের মতো সড়কে নেই গাড়ির জট। সুপার মার্কেট, বিপণিবিতান কিংবা ফুটপাত কোথাও নেই মানুষের ভিড় বা জটলা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মহানগরীর প্রধান সড়কগুলো অনেকটা ফাঁকা। অল্প পরিসরে গণপরিবহন ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করছে। রিকশা, মোটরসাইকেল ও অন্যান্য গণপরিবহনের সংখ্যাও খুব কম। বৃষ্টির কারণে রাজধানীর সড়কে মানুষের উপস্থিতিও কম।

বুধবার থেকে সরকারি অফিস খোলা থাকলেও বেসরকারি বেশিরভাগ অফিস এখনো বন্ধ রয়েছে। স্কুল-কলেজ, গার্মেন্ট এবং বেশিরভাগ বিপণিবিতানও বন্ধ রয়েছে। এসব কারণে রাজধানী অনেকটাই অচেনা রূপ ধারণ করেছে।

তবে ফাঁকা এ ঢাকায় গণপরিবহনগুলোর বেপরোয়াভাব দেখা গেছে। ট্রাফিক সিগন্যালগুলোয় পুলিশের সতর্ক অবস্থান লক্ষ্য করা যায়নি। এ কারণে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে কিছু গাড়ি উল্টো দিকে চলাচল করতেও দেখা গেছে।

কুড়িল-প্রগতি সরণিতে কথা হয় মো. নজরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, অন্যান্য কর্মব্যস্ত দিনে কুড়িল-প্রগতি সরণিতে গাড়ি ও মানুষের দীর্ঘ সারি থাকে। ঈদের ছুটির কারণে ঢাকায় মানুষ কম হওয়ায় এ সড়ক অপরিচিত মনে হচ্ছে।

রাজধানীর বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, রেল স্টেশনে দেখা গেছে, হাজার হাজার মানুষ ঢাকায় আসছে। বুধবার সকাল থেকে মহাখালী, গাবতলী, সায়েদাবাদ, কমলাপুর, সদরঘাট এলাকায় বিভিন্ন বাস টার্মিনালে গ্রাম ফেরত মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। আগামী শনিবার পর্যন্ত গ্রাম ফেরত মানুষের এ স্রোত থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার অফিস খোলা থাকলেও তেমন উপস্থিতি থাকবে না সরকারি ও বেসরকারি অফিসগুলোতে। আগামী রোববার থেকে সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো পুরোদমে জমে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর আগামী সপ্তাহের মধ্যে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ধাপে ধাপে চালু হবে।

একই সঙ্গে গার্মেন্টসগুলোও চালু হবে। হাজার হাজার গার্মেন্টকর্মী যোগদান করবেন স্ব স্ব কাজে। এরই মধ্য দিয়ে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে পাবে রাজধানী ঢাকা।

ঈদের ছুটিতে নগরীর বিনোদনকেন্দ্র, সিনেমা হল, পার্ক ও উন্মুক্ত স্থানগুলোতে মানুষের ভিড় থাকলেও এবার বিরতিহীন বৃষ্টির কারণে সেটা খুব কম লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বুধবার কথা হয় মোহাম্মদপুরের গৃহবধূ বিলকিছ খাতুনের সঙ্গে।

তিনি যুগান্তরকে বলেন, ‘এখন বাচ্চাদের স্কুল ঈদের ছুটি। ওরা বাইরে ঘুরতে চায়। কিন্তু বৃষ্টির কারণে বের হতে পারি না। ঈদের পরের দিন গাড়ি নিয়ে গাজীপুর সাফারি পার্কে গিয়ে ঘুরার সময় ভিজে একাকার হয়েছি।’

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © bdbulletin.com 2018